আমাদের বিদ্যালয়ের ইতিহাস

বরিশাল জেলার বাবুগঞ্জ থানার তিন দিকে সন্ধ্যা ও সুগন্ধা নদী বেষ্টিত কেদারপুর ইউনিয়নে কোন মাধ্যমিক বিদ্যালয় না থাকায় ১৯৬৬ সালে এলাকায় শিক্ষানুরাগী ও সমাজ সেবক এবং গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ অত্র বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার জন্য উদ্যোগ গ্রহণ করেন| তারই ফলশ্রুতিতে ১৯৬৭ সালের ১ জানুয়ারী থেকে ‘ভূতেরদিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়’ নামে অত্র বিদ্যালয়ে শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হয়। মরহুম জয়নাল আবেদীন মৃধা, ( প্রাক্তন চেয়ারম্যান কেদারপুর ইউনিয়ন পরিষদ) বিদ্যালয়ে জমিদান সহ আর্থিক ও কায়িক সাহায্য প্রদান করে বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে মুখ্য ভূমিকা পালন করেন। বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে যে সমস্ত ব্যক্তিবর্গ বিশেষ অবদান রেখেছেন তাদের মধ্যে নিম্ম বর্নিত ব্যক্তিগণ উল্লেখযোগ্য- ১। প্রতিষ্ঠাতা মরহুম জয়নাল আবেদীন মৃধা, (সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান), ২। মরহুম আঃ কাশেম মৃধা , ৩। মরহুম আঃ খালেক মৃধা , ৪। মরহুম আবুল হাশেম ফকির , ৫। মরহুম আবুল কাশেম ফকির , ৬।মরহুম মোশারেফ হোসেন , ৭। জনাব হাবিবুর রহমান মৃধা , ৮। মরহুম সিরাজুল হক , ৯। মরহুম মোঃ আবুল হাশেম কাজী , ১০। জনাব মকবুল হোসেন মৃধা , ১১। জনাব আলহাজ আঃ মন্নান মৃধা , ১২। মরহুম সেকেন্দার হোসেন । বিদ্যালয়টি ০১/০১/১৯৬৮ খ্রিঃ নিম্ন মাধ্যমিক হিসাবে, ০১/০১/১৯৭০খ্রিঃ মাধ্যমিক হিসাবে যশোর শিক্ষাবোর্ডের স্বীকৃতি লাভ করে এবং ১৯৭১ খ্রিঃ থেকে এস.এস.সি . পরিক্ষায় অংশগ্রহনের সুযোগ পায়। ০১/০৯/১৯৮৫ তারিখ এম.পি.ও. ভুক্ত হয়। বিদ্যালয়টি ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধ চলাকালিন সময়ে মুক্তি্যোদ্ধাদের অস্থায়ী ক্যাম্প হিসাবে ব্যবহৃত হয়েছিল। ১৯৭৯ সালের ঘুর্ণিঝড়ে সম্পূর্ণ বিদ্ধস্ত হয়ে যাওয়ায় অত্র বিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষক ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান পৌত্রিক ৪০ শতাংশ জমি বিক্রি করে বিদ্যালয়টি পুনঃনির্মান করে পাঠদানের উপযুক্ত করে গড়ে তোলেন।